খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে নতুন তথ্য দিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল

ঢাকা: রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, সাজা স্থগিত করে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি সরকারের বিবেচনার বিষয়।

মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) অ্যাটর্নি জেনারেল তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, জেলখানায় যারা থাকেন এবং বহুদিন কারাভোগ করেন ৪০১ অনুযায়ীতাদের নানাবিধ বিবেচনায় রিমিশন (লাঘব) দেওয়া হয় এবং অনেক সময় স্থগিতও করা হয়। কিন্তু তারা যদি প্রমাণ করতে পারেন, কেস মেকআউট করতে পারেন সে ব্যাপারে সরকার দেখবে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার ফৌজদারী কার্যবিধির ৪০১ (১) ধারায় সাজা স্থগিত করে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন তার আইনজীবীরা।

এ বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেলের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, ‘অনেকদিন সাজা খাটার পরে এটা সরকার বিশেষ বিবেচনায় স্থগিত করতে পারে। সাধারণত সাজা সাসপেন্ড করা হয়। সেরকম কেস যদি তারা মেকআউট করতে পারে তবে সেটা সরকার বিবেচনাও করতে পারে।’

উল্লেখ্য, গত ৯ জানুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের আহ্বায়ক জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছিলেন, জিয়া চ্যারিটেবলট্রাস্টের মামলায় সর্বোচ্চ সাজা পাঁচ বছর দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে তিনি দুই বছর কারাভোগ করেছেন। তাই তিনি একজন বয়ষ্ক অসুস্থ নারী হিসেবে দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী জামিন পাওয়ার অধিকার রাখেন।

তিনি আরো বলেন, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১(১) ধারা মোতাবেক কোনো সাজার কার্যকারিতা শর্তহীনভাবে স্থগিত করার একমাত্র ক্ষমতা সরকারের হাতে। আমরা আশা করি, সরকার প্রতিহিংসার পথ পরিহার করে আইনগতভাবেই চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে পারেন। এজন্য প্রয়োজন সরকারের সদিচ্ছা।’

আর এ পরিপ্রেক্ষিতে ৪০১(১) ধারায় সাজা খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত করে তাকে মুক্তি দিয়ে দেশে/বিদেশে চিকিৎসার সুযোগ করে দেওয়ার দাবি জানান খন্দকার মাহবুব হোসেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *