সিটি নির্বাচন পেছানোর সুযোগ নেই : ইসি রফিকুল ইসলাম

ঢাকা: নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম বলেছেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচন পেছানোর কোনো সুযোগ নেই।

রোববার (১২ জানুয়ারি) দুপুরে সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, সিটি নির্বাচন পেছানোর বিষয়ে এখন পর্যন্ত কমিশনে কোনো প্রস্তাবনা উত্থাপন করা হয়নি। ফলে নির্বাচন পেছানোর কোনো সুযোগ নেই।

ইসি রফিকুল বলেন, এরই মধ্যে এটা নিয়ে উচ্চ আদালতে রিট হয়েছে। তবে আদালত যদি কোনো সিদ্ধান্ত দেন তাহলে সে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তবে আদালতের কোনো নির্দেশনা না এলে সিটি নির্বাচন পেছানো কোনো সুযোগ নেই।

এ সময় ইসির অতিরিক্ত সচিব মুখলেছুর রহমান বলেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটির রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন সরস্বতী পূজা উপলক্ষে ভোট পেছানোর সুপারিশ করে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন। চিঠির বিষয়টি আমরা নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছি। তবে কমিশন ভোট পেছানোর কোনো চিন্তা করছে না। সরস্বতী পূজা ২৯ জানুয়ারি। সে অনুযায়ি সব হওয়ার কথা।

অতিরিক্ত সচিব আরও বলেন, একটি রিটের কারণে আজ হাইকোর্টের আদেশ দেয়ার কথা ছিল। হাইকোর্ট যদি কোনো আদেশ দেন তাহলে ভিন্ন কথা। তবে পূজার কারণে ভোট পেছানোর সুযোগ নেই।

উল্লেখ্য, গত ৯ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মিহির লাল সাহা এক চিঠিতে পূজার জন্য ভোট পেছাতে দক্ষিণের রিটার্নিং কর্মকর্তাকে চিঠি দেন। এই চিঠির ভিত্তিতেই নির্বাচন পেছানোর জন্য ১০ জানুয়ারি পত্রযোগে নির্বাচন কমিশনকে সুপারিশ করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন।

চিঠিতে বলা হয়েছে-‘নির্বাচন কমিশন সচিবালয় ২২ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখের ১৭.০০.০০০০.৩৪.৩৭.০০৯.১৯-৪৮৪ নং প্রজ্ঞাপনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর পদে ০১-২৫ নং ওয়ার্ড এবং সাধারণ আসনের কাউন্সিলর ০১.৭৫ নং ওয়ার্ডের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ৩০ জানুয়ারি ২০২০ তারিখ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু আগামী ৩০/০১/২০২০ তারিখে সনাতন ধর্মালম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব বিদ্যার দেবী শ্রীশ্রী সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত পূজা লগ্ন বা তিথির মধ্যে সম্পন্ন করতে হয় বিধায় পূজার তারিখ পরিবর্তন করা সম্ভব নয়।’

চিঠিতে আরো বলা হয়, ‘ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এর অধিভুক্ত এলাকাসমূহে ব্যাপক সংখ্যক সনাতন ধর্মালম্বীদের বসবাস। এখানে সনাতন ধর্মালম্বীদের সর্ববৃহ পূজা মণ্ডপ রামকৃষ্ণ মিশন অবস্থিত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল ও উক্ত এলাকাতে অবস্থিত। উক্ত রামকৃষ্ণ মিশন ও জগন্নাথ হলে অত্র এলাকার আশপাশের অনেক প্রতিষ্ঠান থেকে পূজা উপলক্ষে প্রচুর সনাতন ধর্মালম্বী লোকের সমাগম ঘটে। এছাড়া নির্বাচন উপলক্ষে যে সকল প্রতিষ্ঠানে ভোটকেন্দ্র হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে তাদের মধ্যে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানে পূজা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। যেহেতু পুরাতন ঢাকা একটি ঘন জনবসতি এলাকা। সেহেতু উক্ত এলাকার সনাতন ধর্মালম্বীদের এসকল প্রতিষ্ঠান ছাড়া উক্ত পূজা পালন করা অনেকাংশেই সম্ভব হবে না।’ এছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) জগন্নাথ হল শাখা নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের জন্য একটি চিঠি দিযেছে। সার্বিক বিবেচনায় সনাতন ধর্মালম্বীদের ধর্মীয় কাজ সুচারুরূপে পালন করার স্বার্থে নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন করার সুপারিশের যৌক্তিকতা বিবেচনায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্ত আবেদন পত্রটি মহোদয়ের নিকট প্রেরণ করা হলো।’

উল্লেখ্য, স্বরসতী পূজা উপলক্ষে গত ২২ ডিসেম্বর দুই সিটি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে বাংলাদেশ পুজা উদযাপন পরিষদ, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদসহ বেশ কয়েকটি সংগঠন সিটি নির্বাচন পেছানোর জন্য ইসিকে চিঠি দেয়। ইতিমধ্যে এটা নিয়ে আদালতে রিট হয়েছে। কিন্তু ইসি নির্বাচন না পেছানোর বিষয়ে দৃশ্যত অনড় রয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *